আন্তর্জাতিক

Global warming 2030 সালের মধ্যে জলের তলায় ডুববে কলকাতাসহ তালিকায় বড় বড় শহরের নামও!

বিউরো ঃ- হাতে রয়েছে ২০৩০ সাল (2030 Year) পর্যন্ত সময়। মানে মাত্র ৮-৯ বছর সময় (8-9 Years) পাবেন। এরপরেই বিশ্বের (World) নামকরা বড় বড় শহর (City) ডুববে জলের তলায়(underwater)। অবাক হচ্ছেন তো, হ্যাঁ আজকের দিনে দাঁড়িয়ে এরকম কল্পনা করা কঠিন বইকি। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা তেমনই ইঙ্গিত দিচ্ছেন।

কী বলছেন তাঁরা? গ্রিন হাউস গ্যাসের নির্গমন যদি বন্ধ করা না যায় তাহলে প্রবল সমস্যা মনুষ্য সমাজের। সমুদ্রের জলের তাপমাত্রা ক্রমশ বাড়ছে। ফলে জলের তলার যে প্রাণীকূল রয়েছে তারা ধ্বংস হওয়ার সামনে পড়বে। তিন ফুট বাড়বে সমুদ্রের জলতল।

হিমবাহ গলার ফলেই প্রবল জলরাশি সমুদ্রে গিয়ে পড়বে। সবথেকে বড় আশঙ্কার তথ্য দেওয়া হচ্ছে এখানেই। ১০০ বছরের মধ্যেও যে অঞ্চলে বন্যা দেখা যায়নি প্রতি বছর সেখানে বন্যা হবে পরবর্তী সময়গুলিতে। কারণ বিশ্ব উষ্ণায়ন ক্রমশ বাড়ছে। এটি রোখা না গেলে পৃথিবী আরও অত্যন্ত কঠিন সমস্যার মধ্যে পড়তে চলেছে। হিমবাহ যে পরিমাণ গলছে, তার থেকেও অনেকটা বেশি গলন আগামী ১০ বছর পর থেকে শুরু হবে। উত্তর মেরু ও পাশাপাশি এলাকার বরফ ইতিমধ্যে গলতে শুরু করে দিয়েছে।

কোন কোন শহর বিপদসীমায় দাঁড়িয়ে

কলকাতা

পশ্চিমবঙ্গের বেশিরভাগ অংশ তার উর্বর ল্যান্ডস্কেপের কারণে শতাব্দী ধরে সমৃদ্ধ হয়েছে, কিন্তু গবেষণা বলছে এটি কলকাতা এবং এর আশেপাশের জন্য উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠেছে। হো চি মিন শহরের মতো, শহরটি বর্ষার মরশুমে তত সমস্যায় পড়ে না, কারণ বৃষ্টির জল কম জমিতে থাকে। তবে ২১০০ সালের সম্ভাব্য পরিস্থিতি কিন্তু অন্য কথা বলছে। গঙ্গার জলস্তর বেড়ে ডুবিয়ে দিতে পারে গোটা কলকাতা শহরকে।

আমস্টারডাম, নেদারল্যান্ডস

এই শহর এমনিতেই বেশ নিচু। আমস্টারডাম, রটারডাম এবং হেগ শহরগুলি নিচু, সমতল এবং উত্তর সাগরের কাছাকাছি। ডাচরা তাদের বন্যার প্রতিরক্ষার জন্য বিখ্যাত। তবে ২০৩০ সালের পর তা কতটা কাজে দেবে, সে নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। কারণ বিজ্ঞানীরা বলছেন আগামী কয়েক বছর পরেই দেশটির ডাইক, বাঁধ, বাধা, লেভি এবং ফ্লাডগেটগুলির ব্যবস্থা আরও প্রয়োজনীয় হয়ে উঠবে।

বসরা, ইরাক

ইরাকের প্রধান বন্দর শহর বসরা শাট আল-আরবের উপর অবস্থিত। এই শাট আল আরব একটি বিশাল এবং প্রশস্ত নদী যা পারস্য উপসাগরে মিশেছে। খাল এবং স্রোতগুলির অজস্র শাখা রয়েছে। ফলে বসরা এবং এর আশেপাশের অঞ্চলগুলি সমুদ্রের উচ্চতা বৃদ্ধির জন্য বিশেষভাবে ঝুঁকিপূর্ণ। বসরা ইতিমধ্যেই উল্লেখযোগ্যভাবে জলবাহিত নানা রোগের শিকার হয়েছে।

নিউ অরলিন্স, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

নিউ অরলিন্সের কেন্দ্রের চারপাশে রয়েছে শহরের লেভ সিস্টেম যার উত্তরে মাউরেপাস হ্রদ এবং দক্ষিণে সালভাদর হ্রদ এবং লিটল লেক। এই প্রতিরক্ষা ছাড়া নিউ অরলিন্স সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে মারাত্মকভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে।

ভেনিস, ইতালি

খুব অদূর ভবিষ্যতে, ভেনিস জোড়া ঝুঁকির মুখে পড়বে। সমুদ্রের উচ্চতা বাড়ছে এবং শহরটি ডুবে যাচ্ছে – প্রতি বছর দুই মিলিমিটার করে। ভেনিসের রাজধানী ইতিমধ্যেই একাধিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে উচ্চ জোয়ারের ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। নিউ অরলিন্সের মতো, ভেনিসে বন্যা-প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার ব্যবস্থা রয়েছে, কিন্তু সংকট আরও খারাপ হওয়ার সাথে সাথে এটি বজায় রাখা আরও কঠিন এবং ব্যয়বহুল হবে।

হো চি মিন সিটি, ভিয়েতনাম

হো চি মিন সিটিতে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলি হল এর পূর্বাঞ্চলীয় জেলাগুলি – বিশেষ করে থু থিয়েমের বেশ কিছু এলাকা। সমতল, ভারীভাবে নির্মিত জলাভূমি। যদিও হো চি মিন সিটির কেন্দ্র ২০৩০ সালের মধ্যে জলের তলায় চলে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ব্যাংকক, থাইল্যান্ড

২০২০ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে স্বল্প সময়ের মধ্যে বিশ্ব উষ্ণায়নের মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ শহর হতে পারে ব্যাংকক। এই থাই রাজধানী সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ১.৫ মিটার ওপরে বসে এবং ভেনিসের মতো এটিও ডুবে যাচ্ছে। ব্যাংকক খুব ঘন কাদামাটিতে নির্মিত, যা এটিকে আরও বন্যার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে। ২০৩০ সালের মধ্যে, উপকূলীয় থা খাম এবং সামুত প্রাকান এলাকাগুলির বেশিরভাগই জলের নিচে থাকতে পারে।

জর্জটাউন, গায়ানা

কয়েক শতাব্দী ধরে, গায়ানার রাজধানী জর্জটাউন ঝড় থেকে সুরক্ষার জন্য ২৮০ মাইল দীর্ঘ সমুদ্র প্রাচীরের উপর নির্ভর করে। এর কারণ হল বেশিরভাগ উপকূলরেখা উচ্চ জোয়ারের নিচে ০.৫ থেকে এক মিটারের মধ্যে থাকে। গায়ানার জনসংখ্যার প্রায় ৯০শতাংশ উপকূলে বাস করে। এই শহর জলের তলায় চলে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা।

সাভানা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

সাভানা শহর, জর্জিয়ার একটি হারিকেন হটস্পটে বসে, কিন্তু এমনকি প্রাকৃতিক কোনও বড় বিপর্যয় ছাড়াই ঐতিহাসিক এই শহরটির চারপাশে দেখা যায় সমুদ্রের তলদেশে ডুবে যাওয়া স্থলভাগ। উত্তরে সাভানা নদী এবং দক্ষিণে ওগিচি নদী উভয়ই নিকটবর্তী জলাভূমিকে বন্যা বিধ্বস্ত করে দিতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *