বিনোদন

সারোগেসিতে মা হলেন প্রিয়াঙ্কা! মধ্য রাতে জোনাস দম্পতি দিলেন, খুশির খবর!!

তনুশ্রী ভান্ডারী ডেস্ক ঃ-তাঁদের বিচ্ছেদ নিয়ে জল্পনায় সবে প্রলেপ পড়তে শুরু করেছিল। এরইমধ্যে চমকে দিলেন নিক জোনাস আর প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান জন্ম দিলেন তাঁরা।

শুক্রবার রাতে এই খুশির খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ারসারোগেসিতে মা হলেন প্রিয়াঙ্কা! মধ্য রাতে জোনাস দম্পতি দিলেন, খুশির খবর!! করেছেন প্রিয়াঙ্কা নিজেই। ইনস্টাগ্রামে জানিয়েছেন, আমরা খুবই আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি আমরা সারোগেসির মাধ্যমে একটি সন্তান নিয়েছি। এই বিশেষ সময়টুকু আমরা নিজেদের সঙ্গেই কাটাতে চাই, পরিবারকে সময় দিতে চাই। আমাদের সেই প্রাইভেসি দেওয়া হোক। অনেক ধন্যবাদ।
২০১৮ সালে বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন বলিউড ডিভা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। নিক জোনাসের সঙ্গে তাঁর গাঁটছড়া বাঁধার পর থেকেই এই তারকা দম্পতিকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া মশগুল। কখনও তাঁদের মাখোমাখো প্রেমের ছবি ভাইরাল হয় তো কখনও শোরগোল ফেলে দেয় বিচ্ছেদ গুঞ্জন।

গত বছর বিয়ের তিন বছর উদযাপন করেছেন তারকা দম্পতি। প্রণয় থেকে পরিণয়, প্রতি ক্ষেত্রেই ছিল সমালোচনার ঝড়। নিকের চেয়ে বয়সে অনেকটাই বড় প্রিয়ঙ্কা। ফলে, এই বিয়ে আদৌ টিকবে কিনা, তাই নিয়ে সন্দেহ ছিল সব মহলেই। নিয়ঙ্কা কিন্তু কোনও বিরূপ মন্তব্য কানে তোলেননি। বদলে রাজস্থানের উমেদ ভবন রাজবাড়িতে ধুমধাম করে হিন্দু মতে বিয়ে সারেন। পরে আবার খ্রিস্টান মতে বিয়ে করেন গির্জায় গিয়ে। তাঁদের নিয়ে যত কটাক্ষের পরিমাণ বেড়েছে ততই যেন তাঁরা শক্ত করে ধরে থেকেছেন একে অন্যের হাত। পথ চলেছেন নিজেদের মর্জিতে। তারই ফসল সারোগেসির মাধ্যমে জন্ম নেওয়া সদ্যোজাত। নিয়ঙ্কা যেন আবারও প্রমাণ করে দিলেন, বয়স নিছকই সংখ্যামাত্র। চাইলে যে কোনও বয়সেই বেঁধে বেঁধে থাকা যায়।

কিছুদিন আগে নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে নামের সঙ্গে জোনাহ পদবী সরিয়ে দিয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা। তারপর তোলপাড় পড়ে যায় বি-টাউনে। সকলেই বলতে থাকেন তবে কি নিক-প্রিয়াঙ্কার সাধের সংসারে অশান্তি শুরু হল? তবে কি বিচ্ছেদের পথে হাঁটতে চলেছেন দুজন? তবে সেসব জল্পনা প্রিয়াঙ্কা নিজেই উড়িয়ে দিয়েছেন বারবার। শুক্রবার মধ্যরাতে যে খবর তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় জানালেন, তাতে নিক-প্রিয়াঙ্কার সুখী দাম্পত্যেই সিলমোহর পড়ল আরও একবার। এমন সুখবরে উচ্ছ্বসিত তাঁদের অনুরাগীরাও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *