রাজ্যের খবর জেলার খবর দেশের খবর রাজনৈতিক খবর

রেকর্ড ভোটে জয়ী অভিষেক, ‘গ্যারান্টি’তে ভরসা বাংলার।

এই বছরের লোকসভা নির্বাচনে ডায়মন্ড হারবার লোকসভা  আসনে জয়ী তৃণমূল। ৭ লক্ষ ১০ হাজার ৯৩০ ভোটের ব্য়বধানে বিরোধীদের কার্যত উড়িয়ে জয়ী হলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।  তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১০ লক্ষ ৪৮ হাজার ২৩০ ভোট। অভিষেকের নিকটতম প্রতিদ্বন্দী বিজেপির অভিজিৎ দাস (ববি)। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৩ লক্ষ ৩৭ হাজার ৩০০ ভোট। অনেকটা পিছনে সিপিএমের প্রতীক উর রহমান। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৮৬৯৫৩।

ডায়মন্ড হারবার প্রথম থেকেই হাইভোল্টেজ লোকসভা কেন্দ্র। ২০১৪ সাল থেকে এই কেন্দ্রের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বছরেই ওই কেন্দ্রে তৃণমূল তাঁকেই প্রার্থী করেছিল। এই কেন্দ্রে বিরোধীরা অনেক পরে প্রার্থী দিয়েছে। আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকি দীর্ঘদিন ধরেই এই কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু দীর্ঘ টালবাহানার পরে তাঁকে প্রার্থী করেনি আইএসএফ। অন্য একজনকে এখানে প্রার্থী করা হয়। আলাদা করে প্রার্থী দেয় বামেরা। তরুণ মুখ প্রতীক উর রহমানকে এখানে প্রার্থী করা হয়। স্থানীয় মুখ অভিজিৎ দাসকে প্রার্থী করে বিজেপি। নির্বাচনের দিন এই কেন্দ্রে ভোট-হিংসার একাধিক অভিযোগ এনেছিল বিরোধীরা। বাম ও বিজেপি একসুরেই এই কেন্দ্রে রাজ্যের শাসক দলের বিরুদ্ধে তুমুল ভোট হিংসার অভিযোগ এনেছিল।

ভোট গণনার দিনেও প্রবল ঝামেলা হয়। ভোটগণনা কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে এসে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন খোদ বিজেপি প্রার্থী। গণনাকেন্দ্রের ভিতরে বিজেপির এজেন্টদের উপরে হামলা করা হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল।

এদিন সন্ধেয় সাংবাদিক বৈঠক করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। সেখানে তাঁর সঙ্গে ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়। মমতা জানান, অভিষেক সর্বোচ্চ ভোটে জিতেছে- বৈধ ভোটে জিতেছে। সাংবাদিক বৈঠকে বিজেপিকে তুমুল আক্রমণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, ‘এখনও ৪-৫টি জেতা আসনে সার্টিফিকেট দিচ্ছেন না বিজেপির অবজার্ভার। আরও ৩-৪টি আসন পাব আমরা, প্রয়োজনে পুনর্গণনার আবেদন করব। নন্দীগ্রামের পুনরাবৃত্তি তমলুকে, নইলে সেখানেও হারত বিজেপি। বাংলার ওপর সবথেকে বেশি অত্যাচার করেছে বিজেপি। সিবিআই-ইডি-এনআইএ দিয়ে বাংলার ওপর অত্যাচার করেছে। বিজেপির কুৎসার জবাব দিয়েছে সন্দেশখালি। উত্তরবঙ্গে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীও হেরেছে।’

এই লোকসভা কেন্দ্রের অধীনে রয়েছে সাতটি বিধানসভা- ডায়মন্ড হারবার, ফলতা, সাতগাছিয়া, বিষ্ণুপুর, মহেশতলা, বজবজ, মেটিয়াব্রুজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *