আন্তর্জাতিক অর্থনীতি জেলার খবর

মিলনতীর্থ গঙ্গাসাগরে এসে আপ্লুত ইতালির চার বন্ধু জলের উপর নগর, গন্ডোলা, প্রাচীন রোমান শিল্পশৈলী ও ইতিহাসের সাক্ষী তাঁরা।

মিলনতীর্থ গঙ্গাসাগরে এসে আপ্লুত ইতালির চার বন্ধু জলের উপর নগর, গন্ডোলা, প্রাচীন রোমান শিল্পশৈলী ও ইতিহাসের সাক্ষী তাঁরা। গঙ্গাসাগরে এসের ব্যবস্থাপনায় আপ্লুত চার পর্যটক। বছরখানেক আগে চার বন্ধু মিলে
ইতালি থেকে ভারতে ঘুরতে এসেছেন।
প্রত্যেকেরই বয়স ৪৫-৫০ এর মধ্যে।
দলের সদস্যদের মধ্যে দু’জন পুরুষ ও
দু’জন মহিলা। টানা দু’দিন ধরে অবাক
চোখে সারা মেলা ঘুরে ঘুরে দেখলেন
তাঁরা। তাঁদেরই একজন রবার্তো। তিনি
জানান, এক বছর আগে ভারতভ্রমণে
আসছিলেন তাঁরা চার বন্ধু। ফ্লাইটে
আসার সময় একটি ম্যাগাজিনে
আচমকাই তাঁদের চোখে পড়ে
গঙ্গাসাগরে কপিলমুনির আশ্রমের ছবি
সমুদ্রস্নানের ছবি, মেলার ছবি।
কৌতূহল হয়। খোঁজ নিয়ে জানতে
পারেন প্রতিবছর এই সময় এক বিশাল
মেলার আয়োজন হয় গঙ্গাসাগরে।
দেশ-বিদেশের বহু পর্যটক মেলা
দেখতে আসেন। প্রচুর মানুষের ভিড়
গঙ্গাসাগর মেলায় ইতালির চার পর্যটক।
হয় মেলায়। শোনেন কুম্ভমেলার মতো
গঙ্গাসাগর মেলাতেও লক্ষ লক্ষ ভক্তের
সমাবেশ ঘটে। রবার্তো বলেন,
“কুম্ভমেলায় এর আগে চারবার
গিয়েছি। তাই সাগরমেলার বিবরণ শুনে
মেলা দেখার আগ্রহ বেড়ে যায়। মেলার
দিনক্ষণ জেনে সাগরমেলায় আসার
জন্য প্রস্তুতি নিই। চার বন্ধু মিলে নদী
পেরিয়ে চলে আসি গঙ্গাসাগর
মেলায়।” মেলায় এসে ধর্মপ্রাণ মানুষের
অপার বিশ্বাস দেখে অবাক হয়েছেন
চার বন্ধু। সাগরতট থেকে বহুবার হেঁটে
গিয়েছেন কপিলমুনির আশ্রমের দিকে
আবার সমুদ্রমুখী হয়েছেন। একের পর
এক ছবি তুলেছেন সাগরস্নানের, সাধু-
সন্তদের। ছবি তুলেছেন কপিলমুনির
মন্দিরের। দু’দিন ধরে গোটা মেলা
পর্যবেক্ষণ করেছেন তাঁরা। সাগরমেলার
ব্যবস্থাপনা নিজেদের চোখে দেখে
আপ্লুত চার বন্ধুই। রবার্তো জানালেন,
তাঁরা অভিভূত। কুম্ভমেলায় চারবার
গিয়েছেন তাঁরা। কিন্তু সাগরসৈকতে
অনুষ্ঠিত একটা মেলায় এমন ব্যবস্থাপনা
যে হতে পারে তা তাঁদের কল্পনাতেও
ছিল না। “এতো এলাহি আয়োজন!
ম্যাগাজিনে গঙ্গাসাগর মেলা নিয়ে যতটা
না পড়েছি তার থেকে অনেক অনেক
বেশি কিছু পেয়েছি। খুব ভালো
লেগেছে। সুযোগ পেলে আবার আসব।
আসতে বলব বন্ধুদেরও।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *