রাজনৈতিক খবর দেশের খবর রাজ্যের খবর

ভোট দিতে বাড়ি আসার ইচ্ছে নেই ভিনরাজ্যে থাকা মুর্শিদাবাদ জেলার শ্রমিকের একাংশ।

রাজেন্দ্র নাথ দত্ত:মুর্শিদাবাদঃ মুর্শিদাবাদ, জঙ্গীপুর ও বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ ৭ মে ও ১৩ ই মে । অন্যবার এলেও এবার আর ভোট দিতে বাড়ি আসার ইচ্ছে নেই ভিনরাজ্যে থাকা মুর্শিদাবাদ জেলার একাংশ শ্রমিকের। তাঁরা কেউ মুম্বইয়ে, দিল্লিতে কাজ করছেন। আবার অনেকে কেরলে। পরিবারের সদস্যদের গ্রামের বাড়িতে রেখে, কেউ আবার সপরিবার সেখানে রয়েছেন।পরিবারের আর্থিক প্রয়োজন মেটাতে তাঁদের ভিনরাজ্যে যেতে হয়েছে বলে অনেকের দাবি। তাঁদের মধ্যে কেউ বড় অঙ্কের ঋণ নিয়ে মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন। আবার পাকা বাড়ি নির্মাণ করার পর ধারের টাকা মেটাতে ভিনরাজ্যে কাজ করতে হচ্ছে অনেককে। আবার পরিবারের সদস্যের চিকিৎসার টাকা জোগারের জন্য বাইরে ছুটেছেন কেউ কেউ। অনেকের পরিবারের আর্থিক অবস্থা এতটাই খারাপ যে, তাঁরা দুই-তিন বছর পর পর বাড়ি ফেরেন।

ডোমকলের বাসিন্দা রাকিবুল ইসলাম ছ’মাস আগে গুরগাঁওয়ে পোশাক সেলাইয়ের কাজে গিয়েছেন। বাড়িতে রয়েছে স্ত্রী, সন্তান ও বৃদ্ধা মা। প্রতিমাসেই সংসার খরচ পাঠাতে হয়। তিনি বলেন, ভোটে বাড়ি যেতে পারছি না। অনেক ঋণ রয়েছে, দিনরাত কাজ করতে হচ্ছে। তাছাড়া যাওয়া-আসায় কয়েক হাজার টাকা লাগে। কাজেরও ক্ষতি হয়।
ফরাক্কার বাসিন্দা শেখ তাজিমুদ্দিনও বছর তিনেক আগে সপরিবার মুম্বইয়ে পাড়ি দিয়েছেন। সেখানে তিনিও পোশাক সেলাইয়ের কাজ করেন। তাজিমুদ্দিন এদিন ফোনে বলেন,এলাকায় কাজ না পেয়ে স্ত্রী, সন্তানকে নিয়ে মুম্বইয়ে চলে এসেছি। দাদার মুখে শুনেছি আমাদের এলাকায় ভোট। ভোট দিতে আসবেন তো? হতাশার সুরে বললেন, ইচ্ছে থাকলেও যাওয়ার উপায় নেই। রোজগার করব না ভোট দিতে যাব?
শুধু তাজিমুদ্দিনই নয়, ভিনরাজ্যে থাকা মুর্শিদাবাদ জেলার হাজার হাজার শ্রমিক ভোট দিতে আসতে পারছেন না। পরিযায়ী শ্রমিকদের এই দশা নিয়ে রাজ্য সরকারকে তোপ দেগেছেন বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারা। তাঁদের কথায়, রাজ্য সরকার কিছুই করেনি পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য। মুর্শিদাবাদ তথা রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের এই অবস্থার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার ই দায়ী বলছেন তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্বরা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *