রাজনৈতিক খবর জেলার খবর

“পাড়ায় আমরা” কর্মসূচীতে তৃণমূলের ব্লক যুব সভাপতি গৌতম অধিকারী এখন নাওয়া খাওয়া ভুলে ব্যাস্ত জনসেবায়।

ডায়মন্ডহারবার: ‘দুয়ারে সরকারের’ আদলেই শুরু হলো “পাড়ায় আমরা”,  তৃণমূল সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এবার চালু হল ‘পাড়ায় আমরা’ কর্মসূচি। ‘দুয়ারে সরকারের’ আদলেই এই কর্মসূচি শুরু করেছে তৃণমূল যুব নেতৃত্ব। তবে প্রত্যেকে এই সুবিধা পাবেন না! কারা পাবেন জানেন? একমাত্র ডায়মন্ডহারবারের সাধারণ জণগন পাবেন এর সুবিধা।

তৃণমূল সূত্রে খবর, ডায়মন্ডহারবারের প্রত্যেক বিধানসভা এলাকার ব্লক যুব সভাপতিদের এই কর্মসূচি পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই কর্মসূচির মাধ্যমে রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা থেকে বঞ্চিত সাধারণ মানুষের সমস্যার সমাধান করাই লক্ষ্য। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে সোমবার থেকে ডায়মন্ডহারবার ১ নম্বর ব্লকের যুব সভাপতি গৌতম অধিকারী কর্মসূচি শুরু করেছেন।

বুধবার সকালে গৌতমবাবু সহ একদল তৃণমূল কর্মী সমর্থককে ঘুরতে দেখা গেল স্থানীয় বাসুলডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের গ্রামে-গ্রামে। প্রত্যেককে গ্রামের বাড়িতে-বাড়িতে পৌঁছে বাসিন্দারা রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থেকে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্প সহ বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের অন্তর্ভুক্তি হয়েছে কি না তা জানার পাশাপাশি বাসিন্দাদের আর কী কী সমস্যা রয়েছে, তা লিপিবদ্ধ করে ব্লক ও মহাকুমা প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়ে চটজলদি সমস্যার সমাধান করছেন। প্রত্যেকদিন ব্লকের সাতটি গ্রাম পঞ্চায়েতের এক-একটি  গ্রামের বাড়ি-বাড়ি পৌঁছে বাসিন্দাদের যে কোনও সমস্যা সমাধানের লক্ষ্য রাখছে ডায়মন্ড হারবার ১ নম্বর ব্লক যুব তৃণমূল নেতৃত্ব।

এই বিষয়ে এক এলাকাবাসী বলেন, “আমি বিধবা ভাতা পাচ্ছি, স্বাস্থ্য পাচ্ছি। আমার শুধু মাটির ঘর নিয়ে সমস্যা আছে। আর কিছু নেই। এই প্রকল্প পেয়ে ভালো লাগল।” যুব সভাপতি গৌতম অধিকারী এই বিষয়ে বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাধারণ মানুষের কাছে সরকারি সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার জন্য দুয়ারে সরকার প্রকল্প শুরু করেছিল। তবে এই প্রকল্প কতটা বাস্তবায়িত হল তা জানার জন্য আমাদের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন যে দুয়ারে সরকার প্রকল্পের সুবিধা মানুষ পাচ্ছে কি না তা দেখার জন্যই এই প্রকল্প।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *