আন্তর্জাতিক দেশের খবর রাজ্যের খবর

একটাই বাসে বসে চলে যান কলকাতা থেকে ভুটান! জানুন ভাড়া-সময়।

এক বাসেই কলকাতা থেকে পৌঁছনো যাবে ভুটানে। জানা গিয়েছে, সপ্তাহে তিন দিন চলবে এই বাস। যাত্রীর পাশাপাশি নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে জিনিসপত্রও পাঠানো যাবে ভুটানে। ভুটানে বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা থাকে অনেকেরই। এবার তাঁদের জন্য খুশির খবর। ‘কলকাতা বাস ও পিডিয়া’র তথ্য অনুযায়ী, এই বাসটি কলকাতা থেকে ছাড়বে এবং তা যাবে ফুন্টশিলিং পর্যন্ত।

কোন পথ ধরে যাচ্ছে এই ভুটান কলকাতা বাস?
জানা গিয়েছে, এই বাসটি কলকাতা থেকে ছাড়বে এসপ্ল্যানেড মেট্রো স্টেশন সংলগ্ন বাসস্ট্যান্ড থেকে। এরপর তা কৃষ্ণনগর,মালদা, রায়গঞ্জ, ইসলামপুর, শিলিগুলি, ধুপগুড়ি, বীরপাড়া, হাসিমারা, জয়গাঁ হয়ে পৌঁছবে গন্তব্যে।

আগে থেকে এই বাস বুক করার জন্য কোন নম্বরে যোগাযোগ করতে হবে?
এই বাসে স্বাভাবিকভাবেই যাত্রীদের চাপ থাকে। সপ্তাহে তিন দিন তা চলাচল করে। এই বাসে যাতায়াতের ক্ষেত্রে অগ্রিম টিকিট কেটে রাখতে হবে। এই নম্বরগুলি হল- 9831720574, 975 17766997। বাসের অগ্রিম টিকিট বুকিং থেকে শুরু করে , সময়, ভাড়া সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য পাওয়া যাবে এই নম্বরগুলিতে ফোন করলেই।

ভাড়া কত?
কত টাকা খরচ করতে ‘ভারত টু ভুটান’-এর এই যাত্রা নির্ধারিত করা যাবে? জানা গিয়েছে, এক্ষেত্রে একজন যাত্রীর জন্য খরচ ১২৬০ টাকা। পাশাপাশি কোনও ভারী বস্তু পাঠানোর ক্ষেত্রেও এই বাস ব্যবহার করা যেতে পারে। প্রতি কেজি ভাড়া ধার্য করা হয় ১১ টাকা, এমনটাই জানানো হয়েছে।

কোন কোন দিন এবং কোন সময় চলাচল করে এই বাস?
ফুন্টশিলিং থেকে এই বাস ছাড়ে রবিবার, মঙ্গলবার এবং বৃহস্পতিবার। অন্যদিকে, কলকাতা থেকে এই বাস ছাড়ে সোমবার, বুধবার এবং শুক্রবার।
ফুন্টশিলিং থেকে বাসটির ছাড়ার সময় আড়াইটা এবং তিনটে এবং কলকাতা থেকে ছাড়বে সাড়ে ছয়টা এবং সাতটা।

উল্লেখ্য, গত ২৩ সেপ্টেম্বর মাসে ভারতীয় পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হয় ফুন্টশেলিংয়ের ইন্দো-ভুটান দরজা। এর আগে করোনার জন্য দীর্ঘদিন তা বন্ধ ছিল। স্বাভাবিকভাবেই কোভিডের চোখ রাঙানি সামান্য কমতে পর্যটন শিল্পের উপরেও তার সুফল পড়েছে।

পাশাপাশি, ভুটান ঘুরতে যাওয়ার অন্যতম সহজ পথ বাংলা থেকে। পাশাপাশি বিমান ধরেও পৌঁছনো যায় ভুটানে। উত্তরবঙ্গের সড়কপথ ধরেও পৌঁছনো যায় প্রতিবেশী এই দেশে। এই বাস পরিষেবার জন্য উপকৃত হবেন বহু পর্যটক, মনে করা হচ্ছে এমনটাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *